মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

আমাদের অর্জন

আমাদের অর্জনসমূহ:

প্রাথমিক শিক্ষার গুরুত্ব উপলব্ধি করে বর্তমান সরকার সমতাভিত্তিক ও মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিতকরণে নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছে। মানসম্মত প্রাথমিক শিক্ষা নিশ্চিত করতে প্রয়োজন মানসম্মত শিক্ষক। যুগোপযোগী ও মানসম্মত শিক্ষক তৈরির লক্ষ্যে পিইডিপি-৩ এর আওতায় শিক্ষক প্রশিক্ষণের পূর্বের ১২ মাসের সি-ইন-এড শিক্ষাক্রমকে যুগোপযোগী করে ১৮ মাসের ডিপ্লোমা-ইন-প্রাইমারি এডুকেশন (ডিপিএড) করা হয়েছে। এ পিটিআইতে ২০১৬-২০১৭ শিক্ষাবর্ষ থেকে ডিপিএড কার্যক্রম শুরু হয়েছে। ২০১৭-২০১৮ শিক্ষাবর্ষে এ পিটিআই থেকে ১৫০ শিক্ষক ডিপিএড প্রশিক্ষণ সমাপ্ত করেছেন। এছাড়া ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষে ১৫৮ জন শিক্ষক প্রশিক্ষণরত আছেন। ২০১৭-২০১৮ এবং ২০১৮-২০১৯ শিক্ষাবর্ষের ডিপিএড-এর সকল শিক্ষার্থী শিক্ষককে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক প্রদান করা হয়েছে। এছাড়া পরীক্ষণ বিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীকে বিনামূল্যে পাঠ্যপুস্তক প্রদান করা হয়েছে। এ পিটিআই-এর আওতাধীন ২০টি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ডিপিএড শিক্ষার্থীদের শিখন-শেখানো কার্যক্রমের অংশ হিসেবে প্রশিক্ষণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়। এ পিটিআই-এ বিগত ২ বছরে ৫৭৫ জন শিক্ষক আইসিটি ইন এডুকেশন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, ২৪০ জন প্রধান শিক্ষক ডিপিএড বিষয়ক প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। এছাড়া পিটিআই-এর আওতাধীন ইউআরসিসমূহে (সদর, নাচোল ও গোমস্তাপুর) বিগত ২ বছরে ১৩০৫ জন শিক্ষক বিভিন্ন বিষয়ে বিষয়ভিত্তিক প্রশিক্ষণ, ২৫ জন শিক্ষক শিক্ষাক্রম বিস্তরণ বিষয়ক প্রশিক্ষণ, ৭৫ জন শিক্ষক প্রাক-প্রাথমিক শিক্ষা বিষয়ক প্রশিক্ষণ, ৮৬০ জন শিক্ষক মার্কার প্রশিক্ষণ, ৯০ জন শিক্ষক টিএসএন বিষয়ক প্রশিক্ষণ, ৪৬ জন প্রধান শিক্ষক লিডারশীপ প্রশিক্ষণ, ৭৫ জন শিক্ষক ইনডাকশন প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেছেন। এছাড়া গত ২ বছরে ইউআরসি কর্তৃক ১৪ টি চাহিদাভিত্তিক সাব-ক্লাস্টার লিফলেট তৈরি করা হয়েছে। এ পিটিআই-এর শিক্ষার্থীদের অংশগ্রহণে নিয়মিত আন্তঃপিটিআই সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এ পিটিআই-এ প্রায় ১ কোটি ৭৫ লক্ষ টাকা ব্যয়ে অবকাঠামো উন্নয়নের কাজ ইতোমধ্যে শেষ হয়েছে। তাছাড়া বিভিন্ন সময় ইউআরসির অবকাঠামো ও সামগ্রী মেরামতের জন্য বিভিন্ন সময় বরাদ্দ পাওয়া গেছে এবং কাজ ইতোমধ্যে সম্পন্ন হয়েছে।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter